Thursday , August 5 2021

'আমার নিষ্পাপ সন্তানটার কী অপরাধ' প্রশ্ন ইউএনওর



নারায়ণগঞ্জে এবার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তথা ইউএনও হয়ে আসছেন নাহিদা বারিক. এর আগে ২016 সালের 1 ডিসেম্বর পর্যন্ত নাহিদা বারিক ছিলেন ফুল্লার বার্কেলের সার্কেলের এসিল্যান্ড. আর বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ সদরে ইউএনও হিসেবে রয়েছেন হোসনে আরা বেগম বীনা.

বিদায়ের আগ মুহূর্তে বেশ আলোচনায় উলে এসেছেন বর্তমান ইউএনও হোসনে আরা বেগম বীনা. আর এসব নিয়েই গত 8 ফেব্রিয়ারি রাতে বীনা তার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন.

এতে তিনি লিখেছেন, 'আমি ব্যক্তিগত বিষয়গুলো সাধারণত ফেসবুকে খুব একটা শেয়ার করি না. তবে আজ মনে হলো এখন চুপ করে থাকাটাও অন্যায়. ताएँ एक एक एक एक एक, एक एक एक बिल्ली … अमेरिका जोड़ें अनुसार किया गया है, तस्वीरें दिखाएँ में 9 में गर्लैंड के लिए अनुवाद है. আমার দীর্ঘ 9 বছরের ব্যবহার করুন ব্যবহার করুন ব্যবহার করা হয়েছে সম্পাদনা একটি পারিনি. কিন্তু পাঁচ মাস পূর্বে আমি জানতে পারি আমি দুই মাসের সন্তানসম্ভবা. এ ঘটনা আমার জীবনে সৃষ্টিকর্তার অপার রহমত ছাড়া আর কিছুই নয়, এবিশ্বাস আমি প্রতিনিয়ত বুকে ধারণ করেছি. এ বিশ্বাস ও স্বপ্ন বুকে নিয়ে অনাগত সন্তানের আগমনের অপেক্ষায় দিন গুনছিলাম.

উল্লেখ্য আমি আমার বাবুকে পেটে নিয়েই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করি. উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে আমি নারায়ণগঞ্জ -4 ও নারায়ণগঞ্জ -5 আসনের আংশিক নির্বাচন অত্যন্ত সফলভাবে সম্পন্ন করি. একজন নারী কর্মকর্তা হিসেবে অজুহাত, ফাঁকিবাজী এই বিষয়গুলোকে কখনই পুঁজি করিনি. If you do not want to use this feature, you will need to have the following information in mind: সন্তানসম্ভবা হয়েও এর কোনো ব্যতিক্রম আমি করিনি.

অথচ আমি সন্তান সম্ভবা হয়েছি শোনার পর থেকেই একজন বিশেষ কর্মকর্তা, যার নাম বলতেও আমার রুচি হচ্ছে না, বিভিন্ন মহলে আমাকে অযোগ্য হিসেবে উপস্থাপন করে আমাকে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা থেকে বদলীর পায়তারা করেই চলেছিল. আমার সন্তান সম্ভবা হওয়াটাকেই সে বিভিন্ন মহলে আমার সবচেয়ে বড় অযোগ্যতা হিসেবে উপস্থাপন করেছে. অথচ এই সন্তান পেটে নিয়েই আমি অত্যন্ত সফলভাবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সহকারী রিটার্নিং অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি. এতে আমার ঊর্ধ্বতন কর্তিপক্ষ কর্তিক এপ্রিসিয়েশনও পেয়েছি.

southeast

আমার সন্তান প্রসবের সম্ভাব্য তারিখ ছিল এপ্রিলের ২0 তারিখ, তেমন মানসিক প্রস্তুতি নিয়েই আমি ছিলাম. গত 4 ফেব্রুয়ারি বিকেলে রেগুলার চেকআপ করতে আমি হাসব্যান্ডসহ স্কয়ার হাসপাতালে আসি. চেকআপ শেষে সন্ধ্যায় আমরা হাসপাতালে অপেক্ষা করছি পরবর্তী পরীক্ষার জন্য, এমন সময় আমার একজন ব্যাচমেট ফোন করে জানায় আমার সদাসয় কর্তৃপক্ষ আমাকে ওএসডি করেছে অর্থাৎ আমাকে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ করেছে. আমার অপরাধ হলো আমি সন্তান সম্ভবা. আর তার চেয়েও বড় কারণ হলো সেই তথাকথিত ক্ষমতাধর কর্মকর্তার উপরের মহল কর্তৃক তদবির.

খবরটা শোনার পর্বার্ত আমি প্রচণ্ড মানসিক চাপ সহ্য করতে পারিনি. আমি অ্যাজমার রোগী. প্রচণ্ড মানসিকচাপে আমার ফুসফুসে ব্লাড সার্কুলেশন অস্বাভাবিকভাবে কমে যায়, ফলে আমার পেটের সন্তানের অক্সিজেন সাপ্লাই বন্ধ হয়ে যায় এবং হঠাৎ করেই আমার পেটের বাবু নড়াচড়া পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়.

তাৎক্ষণিক হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ডক্টর সেদিন রাতেই সিজার করে বাবু বের করে ফেলার সিদ্ধান্ত নেন. পরে আমার পরিবারের সবার সিদ্ধান্তে সরালে আমার মাত্র 31 সপ্তাহ বয়সী প্রি-ম্যাচিউর ব্যবহার করা হয়েছে. এখন সে স্কয়ার হাসপাতালের এনআইসিওতে বেঁচে থাকার জন্য প্রাণপণ যুদ্ধ করে যাচ্ছে.

আমার এই নিষ্পাপ সন্তানটার কী অপরাধ ছিল? নাকি মা হতে চাওয়াটাই আমার সবচেয়ে বড় অপরাধ ছিল আমি জানি না !!! If you do not have one, then you will be able to use the same name as the one you want to use. এই নিষ্ঠুর অমানবিকতার পিথিবীতে কোনো কর্তা ব্যক্তিদের বিক্রিয়ার বিনার চাই নাম, শুধু আমার সঙষ্টিকর্তাকে বলব তুমি এর বিচার করো !!! If you do not have any more information, please do not hesitate to contact us. ও সুস্থ হয়ে গেলে কোনো কষ্টের কথাই আমার মনে থাকবে না. '

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য ইউএনও হোসনে আরা বেগম বীনার মুঠোফোনে কয়েকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি.

শাহাদাত হোসেন / এফএ / এমএস


Source link